1. themeneed.com@gmail.com : Mbnewstv.com :
বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ১১:১৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
২০ হাজার ৪৫ ভোট বেশি পেয়ে রাজনগরে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন শাহজাহান খাঁন। মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সোনাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সকল ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। রাজনগরের সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসির মতবিনিময়। জনপ্রিয় “ইত্যাদি” অনুষ্ঠান এবার মৌলভীবাজারে। মৌলভীবাজার-৩ আসনে আওয়ামিলীগ মনোনীত প্রার্থী জিল্লুর রহমান।  তফশীল ঘোষনাকে স্বাগত জানিয়ে রাজনগরের ফতেপুরে আনন্দ মিছিল। সোনাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে “কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও অভিবাভক সমাবেশ অনুষ্টিত। সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ তদন্তকারী অফিসার হলেন এস আই সওকত মাসুদ ভূইয়া। রাজনগরে নগদ অর্থ ও জুয়া খেলায় ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি সহ ৭ জুয়ারী গ্রেফতার। রাজনগর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে এক প্রতারক গ্রেফতার।
সংবাদ শিরোনাম:
২০ হাজার ৪৫ ভোট বেশি পেয়ে রাজনগরে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন শাহজাহান খাঁন। মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সোনাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সকল ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। রাজনগরের সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসির মতবিনিময়। জনপ্রিয় “ইত্যাদি” অনুষ্ঠান এবার মৌলভীবাজারে। মৌলভীবাজার-৩ আসনে আওয়ামিলীগ মনোনীত প্রার্থী জিল্লুর রহমান।  তফশীল ঘোষনাকে স্বাগত জানিয়ে রাজনগরের ফতেপুরে আনন্দ মিছিল। সোনাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে “কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও অভিবাভক সমাবেশ অনুষ্টিত। সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ তদন্তকারী অফিসার হলেন এস আই সওকত মাসুদ ভূইয়া। রাজনগরে নগদ অর্থ ও জুয়া খেলায় ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি সহ ৭ জুয়ারী গ্রেফতার। রাজনগর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে এক প্রতারক গ্রেফতার।

আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১
  • ১৪৯ বার ভিউ

এমবি নিউজ ডেক্সঃ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ আজ রোববার। বাঙালি জাতির স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের এক অনন্য দিন। দীর্ঘ আপসহীন আন্দোলনের একপর্যায়ে ১৯৭১ সালের এই দিনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তদানীন্তন রেসকোর্স ময়দান) বিশাল জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দেন।

 

 

এ দিন লাখ লাখ মুক্তিকামী মানুষের উপস্থিতিতে এই মহান নেতা বজ কণ্ঠে ঘোষণা করেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরও দেব, এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণে গর্জে ওঠে উত্তাল জনসমুদ্র। লাখ লাখ মানুষের গগনবিদারী স্লোগানের উদ্দামতায় বসন্তের মাতাল হাওয়ায় সেদিন পতপত করে ওড়ে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত লাল- সবুজ পতাকা। লাখো শপথের বজ মুষ্ঠি উত্থিত হয় আকাশে। সেদিন বঙ্গবন্ধু মঞ্চে আরোহণ করেন বিকেল ৩টা ২০ মিনিটে। ফাগুনের সূর্য তখনও মাথার ওপর। মঞ্চে আসার পর তিনি জনতার উদ্দেশে হাত নাড়েন। পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান লাখ লাখ বাঙালির ‘তোমার দেশ-আমার দেশ, বাংলাদেশ-বাংলাদেশ, তোমার নেতা- আমার নেতা, শেখ মুজিব, শেখ মুজিব’ স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর উদ্দীপ্ত ঘোষণায় বাঙালি জাতি পেয়ে যায় স্বাধীনতা ও গেরিলা যুদ্ধের দিকনির্দেশনা।

 

 

এরপরই দেশের মুক্তিকামী মানুষ ঘরে ঘরে চূড়ান্ত লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধুর এই বজ নিনাদে আসন্ন মহামুক্তির আনন্দে বাঙালি জাতি উজ্জীবিত হয়ে ওঠে। যুগ যুগ ধরে শোষিত-বঞ্চিত বাঙালি ইস্পাতকঠিন দৃঢ়তা নিয়ে এগিয়ে যায় কাঙ্ক্ষিত মুক্তির লক্ষ্যে। ১৯৪৭ সালে ধর্মীয় চিন্তা, সাম্প্রদায়িকতার মানসিকতা ও দ্বি- জাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে গঠিত পাকিস্তান রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ২৩ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিসত্তা, জাতীয়তাবোধ ও জাতিরাষ্ট্র গঠনের ভিত রচিত হয়।

 

 

তারই চূড়ান্ত পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের পর ছাত্র-যুবক-কৃষক-শ্রমিকসহ সর্বস্তরের বাঙালি স্বাধীনতা অর্জনের জন্য মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করে। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে ৯ মাসের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী হয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনে বাঙালি জাতি। এই বিজয়ের মধ্য দিয়ে বিশ্ব মানচিত্রে জন্ম নেয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ, একটি নতুন পতাকা।

 

 

মাত্র ১৯ মিনিটের ভাষণ। এই স্বল্প সময়ে তিনি ইতিহাসের পুরো ক্যানভাসই তুলে ধরেন। তিনি তার ভাষণে সামরিক আইন প্রত্যাহার, জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর, গোলাগুলি ও হত্যা বন্ধ করে সেনাবাহিনীকে ব্যারাকে ফিরিয়ে নেয়া এবং বিভিন্ন স্থানের হত্যাকাণ্ড তদন্তে বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠনের দাবি জানান। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটি প্রতি বছর যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়ে আসছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

 

 

এসব কর্মসূচির মধ্যে আওয়ামী লীগের সব শাখা কমিটি কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কর্মসূচি গ্রহণ করে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ স্মরণ করবে। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার এবং জাতীয় দৈনিক পত্রিকাসমূহ বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে ভাগ করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© All rights reserved © 2023 Mbnewstv.com
Desing & Developed BY ThemeNeed.com